অবশেষে এসএসসি পরীক্ষার উদ্দেশে যা বললেন শিক্ষামন্ত্রী

ক’রো’নার কারণে আ’গামী বছরের এস’এসসি পরীক্ষাও পেছাচ্ছে। শিক্ষা’র্থীদের সিলেবাস এখনও শেষ করা যায়নি। ফলে নির্দি’ষ্ট সময়ে পরীক্ষা শুরু করার সম্ভা’বনা একদ’মই কম বলছে শিক্ষা বোর্ড। শিক্ষাপঞ্জি অনুযা’য়ী আগামী বছরের ফে’ব্রুয়ারি মাস থেকে এস’এসসি পরী’ক্ষা শুরু’র কথা।

ক’রোনা’র কা’রণে এখন এই পরী’ক্ষা নিয়ে দুশ্চি’ন্তায় শি’ক্ষার্থী’রা। নামী প্র’তিষ্ঠান ছাড়া বেশির’ভাগই অনলা’ইনে শি’ক্ষা কার্যক্রম পরিচালনা করতে পারছে না। ফলে এই পর্যায়ে’র বেশিরভাগ শি’ক্ষার্থীরই সিলে’বাস শেষ হয়নি। এসএ’সসির আগে যে নির্বাচনী পরীক্ষা হয় সেটি কিভাবে হবে তা নিয়েও সিদ্ধান্তহীনতায় শিক্ষকরা।

বাংলাদেশ শিক্ষক ইউনি’য়নের সভাপতি নজরুল ইস’লাম রনি বলেন, প্রত্যন্ত অঞ্চলের কথা যদি আম’রা চিন্তা করি, তারা কিন্তু অনলাইনে ক্লাস করতে পারেনি। আবার অনেক ছাত্র আছে যা’রা শহরে পড়াশুনা করতো, তারা এখন গ্রামে চলে গেছে। অ’র্থ’নৈতিক সম’স্যাসহ বি’ভিন্ন কারণে তা’দেরও চলে যেতে হয়েছে।

এক্ষে’ত্রে তারা কিন্তু অন’লা’ইনের সু’বিধাটা পাচ্ছে’ না। তা’ছাড়া সিলে’বাসও কিন্তু অনেক প্রতিষ্ঠান শেষ করতে পারেনি। শিক্ষা বোর্ড ব’ছে, নির্বা’চ’নী পরীক্ষা কি’ভাবে হবে সেটি নিয়ে তারা কাজ ক’রছে। এ বিষয়ে একটি গাই’ডলা’ইন তৈরি হবে। এই পরি’স্থি’তিতে সিলেবা’স শেষ না করে এস’এসসি পরী’ক্ষা শু’রুর কোন সম্ভা’বনা নেই।

এবিষয়ে আ’ন্তঃশি’ক্ষাবোর্ড সমন্ব’য়ক অধ্যাপ’ক জিয়া’উল হক বলেন, শিক্ষাপ্র’তিষ্ঠা’ন না খোলা পর্যন্ত আগামী এসএসসির নির্বাচনী পরীক্ষা গ্রহণ করা সম্ভব না। এসএসসি পরীক্ষা ফেব্রুয়ারী মাসের ১ তারিখ থেকে নিয়ে আসছি গত ১০ বছর যাবত। কিন্তু এবার পরিস্থিতি ভিন্ন। কারণ গত সাত থেকে আট মাস পর্যন্ত শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলো কার্যত ছুটি। ফলে এটি নিয়ে আমা’দেরকে আরো চি’ন্তা ভাব’না করতে হবে। তিনি বলেন,

নির্ধারি’ত সম’য়ের মধ্যে এই পরীক্ষা নে’ওয়া যাবে কিনা, সে বিষয়েও আম’রা নিশ্চিত না। সেই সঙ্গে প’রীক্ষায় সি’লেবাস বা বিষয় কমা’নোর কোনো স’ম্ভাবনা নেই বলে জানান তিনি। করো’না পরি’স্থিতির কার’ণে গত ১৭ মা’র্চ থেকে দেশের শিক্ষা’প্রতি’ষ্ঠান বন্ধ রয়েছে। এবছর খুলবে কিনা তা নিয়েও রয়ে গেছে সংশয়। তাছাড়া করো’না পরিস্থি’তি নিয়’ন্ত্রণে না আসায় এবার এইচএসসি ও সম’মানের পরীক্ষা বাতিল করা হয়”

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Shares